cart_icon
0

TK. 0

book_image

মুগ্ধতায় গাজালি: চিরন্তন কথার ভাঁজে সমকালের ভাবনা

by মুস্তাফা আবু সাওয়ি

Price: TK. 148

TK. 168 (You can Save TK. 20)
মুগ্ধতায় গাজালি: চিরন্তন কথার ভাঁজে সমকালের ভাবনা

মুগ্ধতায় গাজালি: চিরন্তন কথার ভাঁজে সমকালের ভাবনা

Product Specification & Summary

‘মুগ্ধতায় গাযালি : চিরন্তন কথার ভাঁজে সময়ের ভাবনা’ বই থেকে:
“কত শত রাত ঘুম বাদ দিয়ে পড়াশোনায় ডুবে ছিলে৷ কত শত রাত তোমার জেগে জেগে কেটেছে বইয়ের পাতায় মুখ গুঁজে৷ বলতে পারব না কী নিয়তে করেছিলে এসব৷ দুনিয়াবি স্বার্থ, এর অসারতা, বিশেষ কোনো পদ বাগানো, কিংবা সতীর্থদের মাঝে দেমাগ দেখানোর জন্য যদি করে থাকো, তা হলে তুমি এক হতভাগা৷ আবারও বলছি, তুমি এক হতভাগা৷
“কিন্তু যদি নবিজির—তাঁর প্রতি আল্লাহর দয়া ও শান্তি বর্ষিত হোক—পবিত্র বিধিকে সমুজ্জ্বল করতে, নিজের চরিত্র শুদ্ধ করতে, পাপাচারী মনকে দমাতে এসব করে থাকো, তা হলে তুমি সত্যিই সৌভাগ্যবান৷ আবারও বলছি, তুমি সত্যিই সৌভাগ্যবান৷”
⋯ একবার ইমাম গাযালির এক ছাত্র চিঠি লিখেছিলেন তাঁর কাছে৷ জানতে চেয়েছিলেন, পরজীবনের জন্য কোন ধরনের জ্ঞান কল্যাণময়৷ সন্দেহ নেই, ছাত্রটি বহু দিন ধরে জ্ঞানচর্চা করছিলেন; তবে উস্তাযের কাছে আরও কিছু সদুপদেশ পেতে চিঠি লিখে জানতে চেয়েছিলেন৷
ইমাম গাযালির প্রতিটি বই-ই অসাধারণ সব রত্নভাণ্ডারে ঋদ্ধ৷ উপরে যে-কথাগুলো তুলে দিলাম, সেগুলো তিনি বলেছিলেন আয়্যুহাল-ওয়ালাদ বইতে৷
অন্তরগুরু গাযালি যে-পরামর্শ এখানে দিয়েছেন, তা শুধু জ্ঞানচর্চা নয়; আমাদের প্রতিটি কাজের বেলায় খাটে৷ যেকোনো কাজ—তা যদি আমরা আল্লাহকে খুশি করার জন্য করি, তা পুরস্কারের নিমিত্ত৷ অন্যদিকে যদি দুনিয়াবি কোনো স্বার্থে করি, তার ফলাফল কেবল এখানেই৷ আর কাজটি যদি খারাপ কিছু হয়, তা হলে এর পরিণাম ভোগ করতে হতে পারে পরজীবনেও৷ মানুষের জীবনে এরচে বড় বিপদ আর কিছু হতে পারে না!
নাম কামানো, মানুষের মাঝে অবস্থান তৈরি কিংবা সম্পদের স্তূপ গড়ার খায়েশ আমাদের অন্তরের জন্য বড়ই হানিকর৷ কিন্তু কালের পর কাল এ-ই করে আসছে মানুষ৷
ইসলাম বৈধভাবে সম্পদ অর্জনে বাধা দেয় না৷ অপচয় বা কিপটেমি না করে যথাযথ খাতে প্রয়োজনে ব্যয় করার অনুমোদন আছে এখানে৷ বৈধ সম্পদ বৈধভাবে ব্যয় করা ব্যক্তির নিজের জন্য যেমন কল্যাণের, গোটা সমাজের জন্যও৷ হাতে পয়সা থাকলে যেকোনো সামাজিক দায়িত্ব পালন করা যায় সহজে৷ আমাদের তৃতীয় ন্যায়পর খলীফা উসমান বিন আফ্‌ফান কিংবা আবদুর-রাহমানের মতো বেশ কিছু সাহাবি ছিলেন ধনী৷ জনকল্যাণে তারা প্রচুর টাকাপয়সা দান করেছেন৷
কখনো সমাজ সেবা করে, বৈজ্ঞানিক অগ্রগতিতে অবদান রেখে কিংবা মানবকল্যাণ করে মানুষ খ্যাতি অর্জন করে ফেলে৷ এ তো অবশ্যই দোষের কিছু না৷ সমাজের মানুষ যদি সবাই মিলে সবার জন্য কাজ না করেন, তা হলে সে-সমাজ এগোবে কীভাবে? নিরক্ষরতা দূর করা, বিশুদ্ধ পানির ব্যবস্থা, পয়নিষ্কাশন, রোগ-প্রতিরোধ, দারিদ্র্য দূরীকরণ-সহ যেকোনো ভালো ভালো কাজে তো মুসলিমদেরই এগিয়ে আসা উচিত সবার আগে৷
তবে কথা কী, খ্যাতির হাত ধরেই খুলে যায় বেশ কিছু অন্যায়ের রাস্তা৷ এসব ব্যাপারে আমাদের হুঁশিয়ার থাকা উচিত৷ কেউ কেউ গুরুত্বপূর্ণ কোনো দায়িত্বে কাজ করতে গিয়ে নিজেকে কিছু একটা ভেবে বসতে পারেন৷ এমনটা ভাবা বোকামি হবে৷ দেখুন, জনসাধারণের সঙ্গে আমাদের সম্বন্ধটা উপর তলার নিচ তলার নয়; পাশাপাশি৷ কাজেই তাদেরকে নীচু চোখে দেখবেন না৷
কোনো কাজের যোগ্য না হয়েও কেউ যদি পেছনের দরজা দিয়ে চাকরি বাগিয়ে নেন, নিসন্দেহে চরম অন্যায় হবে সেটা৷ ক্ষমতার ক্ষুধায় কোনো বিশেষ পদ পেতে কেউ যদি অবৈধ রাস্তায় হাঁটেন, অন্যের ক্ষতি করেন, এর পরিণাম হবে খুবই ভয়াবহ৷ আর এর রেশ শুধু দুনিয়াতে নয়; থাকবে পরজীবনেও৷

Title মুগ্ধতায় গাজালি: চিরন্তন কথার ভাঁজে সমকালের ভাবনা
Author
Translator
Publisher
Edition 1st Published, 2019
Country বাংলাদেশ
Language বাংলা

Sponsored Products Related To This Item

Customers who bought this product also bought

Reviews and Ratings

5.0

5 Ratings and 2 Reviews

Recently Sold Products

call center

Help: 16297 24 Hours a Day, 7 Days a Week

Pay cash on delivery

Pay cash on delivery Pay cash at your doorstep

All over Bangladesh

Service All over Bangladesh

Happy Return

Happy Return All over Bangladesh